মাদক ব্যবসার টাকায় ভাগ নেন মহাস্থানের ভুয়া ‘এসআই’

তাজা খবর, আঃ ওয়াহেদ ফকির:: বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার মহাস্থান নামাপাড়া গ্রামে ও আশপাশের এলাকায় প্রকাশ্যে চলছে মাদক ব্যবসা ও মাদক সেবন। এতে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী মাদকবিরোধী বিক্ষোভ করেছেন।

অভিযোগ রয়েছে, সংবাদকর্মী ছদ্মবেশে থাকা কথিত এসআই সুমন পুলিশ পরিচয়ে বীরদর্পে নানা অপকর্মে লিপ্ত। মাদক সিন্ডিকেটের সাথে কথিত ‘এসআই’ যুক্ত থাকার অভিযোগ উঠেছে জনশ্রুতিতে।

জানা গেছে, উপজেলার রায়নগর ইউনিয়নের মহাস্থান নামাপাড়া ও ঐতিহাসিক মহাস্থানগড় হযরত শাহ সুলতান বলখী (রহঃ) এর মাজার এলাকা ও বাজারের আশপাশে এলাকাজুড়ে বীরদর্পে চলছে মাদকের জমজমা ব্যবসা।

যুব সমাজ সহ স্থানীয় নারী-পুরুষের অভিযোগ- দীর্ঘদিন ধরে মহাস্থান নামাপাড়া গ্রামে মৃত লুৎফর রহমানের পুত্র একাধিক মাদক মামলার আসামী আবু ছাইদ (২৮), সাকিল আহম্মেদ (২০) মোছাঃ জলি বেগম (২৫) স্বামী ছাইদ, মৃত লুৎফর রহমানের স্ত্রী সাহিদা বেগম(৪৫)  ফিরোজের স্ত্রী সুন্দরী বেগম (৪৫) সিহাব হোসেন (২৩) কেটুর পুত্র শাওন, সহ পাঁচ-ছয়জন নিজ বাড়িসহ এলাকায় প্রকাশ্যে, গাঁজা, ফেনসিডিল,ইয়াবা ,হিরোইন  বিক্রি করছেন। আগে তাঁরা কিছুটা গোপনে এ ব্যবসা চালালেও কিছু দিন হলো বেপরোয়া হয়ে ওঠে। এদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধ থানায় মাদকের মামলা রয়েছে। মাদক সহ একাধিক বার পুলিশ তাদের আটক করলেও কিছু দিন জেলহাজতে থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে আবারও মাদক পেশায় জড়িত হয়। ফিরোজের স্ত্রী সুন্দরী বেগম বেশ কয়েক মাস পূর্বে ইয়াবাসহ ডিবি পুলিশের হাতে আটক হয়েছিল। পরে জেল থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে আবারও মাদক বিক্রি শুর করে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন ব্যক্তি জানান, মহাস্থানের মাদক ব্যবসার টাকার ভাগ নেন সংবাদকর্মী ছদ্মবেশে থাকা কথিত এসআই সুমন। সে পুলিশ না হলেও এসআই পরিচয়ে এলাকায় দাপুটে প্রভাব নিয়ে চলাফেরা করেন। মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে রয়েছে তাঁর ব্যাপক সখ্যতা। কোনো মাদক ব্যবসায়ী একমাস বখরা দিতে ব্যর্থ হলেই গ্রেফতারের ভয় দেখান কথিত এসআই সুমন। বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখানোর পাশাপাশি স্থানীয় লোকজনকে প্রলোভন দেখিয়ে দু-একজন মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মানববন্ধন করিয়ে থানা পুলিশকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে। পুলিশ মাদকবিরোধী অভিযানে নামলেই মাদক সিন্ডিকেটের কানে খবর পৌঁছে দেন ওই ভুয়া এসআই। এছাড়া বিভিন্ন কথিত আবাসিক হোটেল ও বাড়িতে দেহ ব্যবসা সিন্ডিকেটের কাছ থেকেও মাসিক বখরা নেন এই সুমন।

স্থানীয়রা আরও জানান, এলাকার বাইরে থেকে প্রেমিক জুটি বা কলেজ স্টুডেন্ট তরুণ-তরুণী মহাস্থানে ঘুরতে এলেই ফাঁদ পেতে রাখেন সংবাদকর্মী ছদ্মবেশে থাকা কথিত এসআই সুমন। পরে এসআই পরিচয়ে প্রভাব বিস্তার করে অনৈতিক সুবিধা নেন। পিতা-মাতার দেওয়া নাম পাল্টিয়ে নামের আগে যুক্ত করেছেন ‘এসআই’। ফলে গ্রামের মানুষের কাছেও আতংকবাজ এই সুমন।

স্থানীয়রা বলেন, সে ইতি পূর্বে একটি থানার এক দারোগার রাইটার ছিল, পরবর্তীতে মামলার অনেক গোপনীয় তথ্য গনমাধ্যম কর্মীদের নিকট প্রকাশ করায় ওই দারোগাকে বিভাগীয় ভাবে অনেক ঝুট-ঝামেলায় পরতে হয়। এই কারনে থানা হতে তাকে বের করে দেওয়া হয়।

গ্রামবাসীর ধারনা, এরপর হতে সে নিজেই তার নামের পূর্বে ‘এসআই’ শব্দ ব্যবহার করে ফায়দা হাসিল করেই চলছে।

এসআই পরিচয়ে থাকা সুমনের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি তুলেছেন স্থানীয়রা।

অন্যদিকে শনিবার (১১ অক্টোবর) বিকাল ৪টায় সরেজমিনে গিয়ে জানা য়ায়, ফিরোজের স্ত্রী সুন্দরীকে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ মাদক সহ আটক করেন।

এলাকাবাসী জানান, শুধু নামাপাড়া নয়, মধ্যেপাড়া, মহাস্থান করতোয়া ব্রীজের পাশে দণিপাড়া, আকন্দপাড়া, মহাস্থান দণিপাড়া ও পশ্চিমপাড়া, মহাস্থানগড় দণিপাড়া, পাথরপাড়া, শালবাগানসহ আরও বেশকিছু এলাকায় প্রকাশ্যে মাদকের হাতবদল হয়।

মহাস্থান নামাপাড়া গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি লালু মিয়া জানান, প্রতিদিন দূর-দূরান্ত থেকে মাদকসেবীরা এখানে আসে। সকাল-বিকেল এদের আনাগোনা বাড়ে। এদের অত্যাচারে নারী, শিশুসহ সাধারণ মানুষের পথচলাই কঠিন হয়ে পড়ে। বিশেষ করে নারী ও ছাত্রীরা প্রায়ই এদের দ্বারা উত্ত্যক্ত হয়।

মাদকসেবীদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী সোমবার (১২অক্টোবর) বিকালে মাদক ব্যবসা ও সেবন বন্ধের দাবিতে এলাকার নারী-পুরুষ বিক্ষোভ মিছিল ও তাদের শাস্তির দাবিতে গণস্বার করেন।

রায়নগর ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম শফি বলেন, মহাস্থান এলাকায় মাদকের রমরমা ব্যবসা ছিল। এটি ধারাবাহিক পদক্ষেপ নিয়ে অনেকটা শূণ্যের কোঠায় নেমে আনা হয়েছিল। ইদানিং এটি আবারও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। মাদক বিক্রি ও সেবন ইউনিয়নের জন্য লজ্জার বিষয়। মাদক ব্যবসায়ীর কোন ছাড় নেই। আমি চাই যেকোনো মূল্যে এলাকা মাদকমুক্ত হোক।

শিবগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম বদিউজ্জান  বলেন, শিবগঞ্জ থানা এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীর কোনো ঠাঁই নেই। এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিব এবং নিচ্ছি।

ডেস্ক/তাজাখবর/নবীন

 

সংবাদটি শেয়ার এবং লাইক করুন