চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে অবৈধ ইটভাটা গিলছে ফসল (!)

তাজা খবর করেসপন্ডেন্ট: চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে ফসলি জমি, নদী, খাল এবং আবাসিক এলাকার মধ্যেই অবৈধভাবে ইটভাটা গড়ে তোলা হয়েছে। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পরিবেশ ও গ্রামবাসী। পুড়ছে গাছপালা। নষ্ট হচ্ছে জমির ফসল। উর্বরতা হারাচ্ছে ফসলি জমি।

এলাকার মানুষের অভিযোগ রয়েছে, সরকারি নিয়মনীতি অমান্য করে অবৈধভাবে ইটভাটা চালিয়ে যাচ্ছে মালিকরা।

পরিবেশ বিভাগ বলছে, পরিবেশ দূষণ রক্ষায় সরকার জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছে। তাই বিধি-বিধান অমান্য করলে ছাড় দেয়ার সুযোগ নেই। পরিবেশ আইন অনুযায়ী ফসলি জমির পাশে ইটভাটা স্থাপনের কোনো বিধান নেই। একই সঙ্গে লোকালয় থেকে কমপক্ষে এক কি.মি. দূরে ইটভাটা স্থাপন করতে হবে।

সেই সঙ্গে গ্রামবাসী তথা সর্বসাধারণের স্বাস্থ্যগত দিক বিবেচনা করে ইটভাটা চালাতে হবে। কিন্তু কীভাবে গ্রামের ঘনবসতি এলাকায় একটি ইটভাটা দীর্ঘদিন কার্যক্রম চালিয়ে আসছে জনমনে এমন প্রশ্ন রয়েছে।

জানা গেছে, ফরিদগঞ্জ উপজেলায় মোট ২৯টি ইটভাটা রয়েছে। যার মধ্যে ১২টি ছাড়া বাকি ১৭টিই অবৈধ। উপজেলার ১নং বালিথুবার টুবগি এলাকায় গাজী (গাংগুল্লা) বাড়ির পাশে পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়ম অমান্য করে তাজুল ইসলাম নামের একজন এম.টি.বি. নামে গড়ে তুলেছে ইটভাটা। পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের গাজীপুর বাজারের পাশে রয়েছে ইটভাটা।

পৌর এলাকায় ইটভাটা করার নিয়ম না থাকলেও ফরিদগঞ্জ পৌর এলাকার চরবসন্ত এলাকায় টিএনবি নামে একটি ইটভাটা চলছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ইটভাটার ধোঁয়ায় স্থানীয় মীরের বাড়ি, গাজী বাড়ি, বেপারী বাড়ি, শেখ বাড়ি, খান বাড়ি, মিজি বাড়ি, মজুমদার বাড়িসহ এই অঞ্চলের অসংখ্য বাড়ির নারিকেল, সুপারি, কাঁঠাল গাছসহ বিভিন্ন ফল গাছ ধোঁয়ায় পুড়ে ছাই হয়েছে। যে গাছগুলো আছে সেগুলোর পাতা লাল হয়ে গাছ শুকিয়ে যাচ্ছে।

এলাকার লোকজন জানান, ব্রিকফিল্ডের মালিক তাজুল ইসলাম এলাকার কৃষকদের লোভ-লালসা দেখিয়ে কৃষি জমির মাটি ক্রয় করে এনে, ইট তৈরি করে কৃষি জমিকে ব্যবহারের অনুপযোগী করে তুলছে। গণস্বাক্ষর নিয়ে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, পরিবেশ অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দিলেও কোনো কাজ হয়নি।

এদিকে ইটভাটার কারণে যন্ত্রদানব অবাধে চলাচল করায় উপজেলার বিভিন্ন সড়ক আবারো নষ্ট হচ্ছে।

চাঁদপুর জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সাথে কথা হলে তারা জানান, উপজেলার অনেক ইটভাটাই অবৈধ। কিন্তু কাগজপত্রের কিছু জটিলতার কারণে ব্যবস্থা নিতে পারছেন না।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিউলী হরি বলেন, অবৈধ ইটভাটাগুলোর তালিকা জেলা প্রশাসক বরাবর দেয়া হবে। আশা করছি, জেলা প্রশাসক এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবেন।

 

সংবাদটি শেয়ার এবং লাইক করুন