আমিনপুরে জুয়ার নেপথ্যে কারা? দাপুটেরা এখনো অধরা

তাজা খবর করেসপন্ডেন্ট :: পাবনার সুজানগর উপজেলার আমিনপুরে জুয়াড়ি সিন্ডিকেটের হোতারা এখনো অধরা।  এদিকে নগরবাড়ি এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে জুয়ার আসর চালাচ্ছেন দাপুটে জুয়াড়িরা। জুয়া খেলার আসক্তিতে অনেকে দেউলিয়া হচ্ছেন এবং বিভিন্ন অপরাধে সম্পৃক্ত হচ্ছে যুব সমাজ। ছত্রছায়ায় থাকা দাপুটে প্রভাবশালীরা এখনো অধরা। তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি তুলেছেন স্থানীয়রা।

জনশ্রুতিতে অভিযোগ উঠছে, থানা পুলিশের কিছু অসাধু সদস্যরা জুয়াড়ি সিন্ডিকেটের কাছ থেকে বখরা নেন। থানা পুলিশের কাছে তথ্য দিলেও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় এবার পুলিশ সুপারকে তথ্য দিচ্ছেন স্থানীয়রা।

গোপন তথ্যের ভিত্তিতে রোববার (১৮ জুলাই) রাতে আমিনপুর থানা এলাকায় জুয়ার আস্তানায় অভিযান চালিয়েছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি আব্দুল হান্নানের নেতৃত্বে একটি টিম। এসময় নগদ টাকাসহ ৪ জন জুয়াড়িকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পাবনা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান এতথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেফতারকৃতরা আমিনপুর থানার নতুনপাড়া বসন্তপুর এলাকার সামাদ শেখের ছেলে নুরুজ্জামান শেখ (২৬), হরিনাথপুর এলাকার মৃত মোসলেম উদ্দিনের ছেলে হাসান শেখ (৩৩), নতুনপাড়া এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে লিমন হোসেন শেখ (২৯) এবং নতুনপাড়া বসন্তপুর এলাকার আবুল কালাম শেখের ছেলে সানোয়ার হোসেন সাকিব (২৮)।

গোয়েন্দা পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃতরা বিপিএল, আইপিএল, ফুটবল খেলা ও বিভিন্ন এ্যাপ ব্যবহার করে অনলাইন জুয়া ও বাজী পরিচালনা চক্রের নেতৃত্ব দেয়।

এরআগে সোমবার (১২ জুলাই) জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে আমিনপুরের সৈয়দপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের দুর্গম বিলে পাটখেতে জুয়ার আসরে অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় জুয়া খেলার সরঞ্জাম ও নগদ টাকা সহ হাতেনাতে ৮ জুয়াড়িকে গ্রেফতার করা হয়। তারা পুলিশকে জানায়, সিন্ডিকেট প্রধান ফিরোজ ও দেলোয়ারের ছত্রছায়ায় বেলা ১১ থেকে গভীর রাত পর্যন্ত জুয়ার আসরে লাখ লাখ টাকার খেলা হয়।

অন্যদিকে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি রাত ১১টার দিকে নাজিরগঞ্জ ইউনিয়নের বরখাপুর এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। জুয়া খেলারত অবস্থায় চার জুয়াড়িকে আটক করা হয়। এ সময় জুয়া খেলার সরঞ্জাম ও নগদ টাকা জব্দ করা হয়।

 

সংবাদটি শেয়ার এবং লাইক করুন