চোরাই মোটরসাইকেল অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে বিক্রি করে তারা (!)

তাজা খবর, বিল্লাল হোসাইন বেলাল, চট্টগ্রাম : মো. জাবেদ (২৭) নামে যুবক ছিলেন বাস চালক । অবসরে বিভিন্ন স্থানে পাকিং করা মোটর সাইকেলের মালিকদের তথ্য সংগ্রহ করে সেই তথ্য পাচার করে দিতো মোটরসাইকেল চোর চক্রের হোতা ইসমাইল নামের কক্সবাজারের এক ব্যক্তিকে। পরে ইসমাইলের নেতৃত্বে সুযোগ বুঝে চুরি করতো সেই মোটর বাইক।

চুরির সময় চক্রের কয়েকজন সিসি ক্যামেরা আড়াল করে দাঁড়িয়ে থাকত। আর অন্যরা তালা কেটে কিংবা লক ভেঙে মোটরসাইকেল চুরি করে নিয়ে যেত।

পরে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের বিভিন্ন গ্যারেজে নিয়ে ইঞ্জিন, চেসিস ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর পাল্টে ফেলা হত। পাল্টে ফেলা সেই মোটরসাইকেল অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে বিক্রি করত চক্রটি।

সম্প্রতি নগরীর পতেঙ্গা থানাস্থ চরপাড়ার একটি ভবনের গাড়ি রাখার জায়গা থেকে ইয়ামাহা এফজেডএস মডেলের একটি মোটরসাইকেল চুরির মামলা তদন্ত করতে গিয়ে জাবেদ নামের এই বাসচালককে মোটর সাইকেল চুরির ঘটনায় গ্রেপ্তার করলে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসে।

গত রবিবার গভীর রাতে পতেঙ্গা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় জাবেদকে। সেই সঙ্গে চুরি যাওয়া দুটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে পুলিশ।

পতেঙ্গা থানার ওসি কবির হোসেন জানান, গত ২৭ অগাস্ট পতেঙ্গার চরপাড়ার একটি ভবনের গাড়ি রাখার জায়গা থেকে ইয়ামাহা এফজেডএস মডেলের একটি মোটরসাইকেল চুরি হয়। এ ঘটনায় একটি মামলা হয় থানায়। মামলার তদন্ত করতে গিয়ে পতেঙ্গা এলাকা থেকে জাবেদকে গ্রেপ্তার করা হয়।

চুরি যাওয়া মোটর-সাইকেলটি তার কাছেই পাওয়া যায়, কিন্তু সেটার তেলের টাংক ছিল না, আর নম্বর প্লেটও ছিল ভিন্ন।

ওসি কবির বলেন, মোটরসাইকেলে ‘কক্সবাজার ল ১১-৮২০৯’ নম্বরের অন্য একটি মোটরসাইকেলের নম্বর প্লেট লাগিয়ে রেখেছিল জাবেদ। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে কদমতলীর একটি গ্যারেজ থেকে মোটর সাইকেলের ট্যাঙ্কটি উদ্ধার করা হয়। এটি সেখানে দেওয়া হয়েছিল রং পাল্টানোর জন্য।

 

সংবাদটি শেয়ার এবং লাইক করুন