নন্দীগ্রামে ৪টি ইউনিয়নেই হবে ত্রিমুখী ভোটযুদ্ধ

তাজা খবর অনলাইন ডেস্ক :: চতুর্থ ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বগুড়ার নন্দীগ্রামে আগামী ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। ৪টি ইউনিয়নের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ভোটযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন ১৯ জন প্রার্থী। সক্রিয়ভাবে প্রচারণায় ভোটারদের বাড়ি বাড়ি ছুটে গেছেন প্রার্থীরা। এদিকে বিজিবি টহল শুরু হয়েছে।

শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১২টার মধ্যে সব ধরনের প্রচার শেষ হয়েছে। শেষ মুহুর্তের প্রচার-প্রচারণায় সরগরম ছিল পাড়া-মহল্লা। নিজের দলের বিদ্রোহী প্রার্থীরা ঘুম কেড়ে নিয়েছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের। তবে ভেদাভেদ ভুলে উন্নয়নের জন্য দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করার জন্য জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতারা বিভিন্ন এলাকায় সভা-সমাবেশ করে নানা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। কে হচ্ছেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান! এনিয়ে গ্রাম ও বাজার থেকে শুরু শহরের চা-স্টলের আড্ডাসহ সর্বত্রই ভোটারদের মাঝে চলছে জল্পনা কল্পনা। যোগ্য ও পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে শান্তিপূর্ণ ভোটকেন্দ্র চান ভোটাররা।

তারা বলছেন, ৪টি ইউনিয়নেই হবে ত্রিমুখী ভোটযুদ্ধ।

  • নন্দীগ্রাম ২ নং সদর

সদর ইউনিয়নে ভোটারদের আলোচনায় রয়েছেন মখলেছুর রহমান মিন্টু (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজাউল করিম কামাল (আনারস)। প্রচারণায় সরব ছিলেন আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রভাষক আব্দুল বারী বারেক (চশমা)।

সম্প্রতি সদর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বারেকের উপস্থিতিতে তার সমর্থকরা নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর দুই কর্মীকে মারধরের পর স্বতন্ত্র প্রার্থীর ভাই আব্দুল মান্নানকে মারধরের ঘটনায় রণবাঘা এলাকায় দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা লক্ষ্য করা গেছে। অপ্রীতিকর ঘটনার আশংকা করছেন ভোটাররা।

  • ৩ নং ভাটরা ইউনিয়ন

ভাটরা ইউনিয়নে ভোটারদের আলোচনায় মোরশেদুল বারী (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মজনুর রহমান মজনু (আনারস)। আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল্লাহেল বাকী (ঘোড়া) প্রচারণায় সরব ছিলেন।

প্রচারণায় ছিলেন মোখলেছুর রহমান (হাতপাখা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী লুৎফর রহমান (মোটরসাইকেল)।

  • ৪ নং থালতা-মাঝগ্রাম ইউনিয়ন

থালতা-মাঝগ্রাম ইউনিয়নেও ত্রিমুখী ভোটযুদ্ধের সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন ভোটাররা।

আলোচনায় রয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মতিন (আনারস), হাফিজুর রহমান নান্টু (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এডভোকেট ইলিয়াস আলী (মোটরসাইকেল)।

প্রচারণায় সরব ছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এহসানুল ইসলাম খান (চশমা), স্বতন্ত্র প্রার্থী জিল্লুর রহমান (অটোরিক্সা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুর রহমান (ঘোড়া)।

  • ৫ নং ভাটগ্রাম ইউনিয়ন

ভাটগ্রাম ইউনিয়নে আলোচনায় রয়েছেন জুলফিকার আলী (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী শামছুর রহমান (আনারস) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ (চশমা)।

প্রচারণায় সরব ছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজাউৎদৌলা ববি (মোটরসাইকেল), স্বতন্ত্র প্রার্থী এহতাশামুল আলম (ঘোড়া)।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আব্দুল কাইযুম জানান, ভোটের দিন ভোরে ৪৯টি কেন্দ্রে ব্যালট পেপার পৌঁছাবে। কেন্দ্রে একজন করে প্রিজাইটিং অফিসার থাকবেন। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যেকোনো ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে থানা পুলিশ।

সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (নন্দীগ্রাম সার্কেল) আহমেদ রাজিউর রহমান বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নির্বাচন অফিসের নির্দেশনা অনুয়ায়ী মাঠে থাকবে পুলিশ।

থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ বলেন, ভোটকেন্দ্রের আশপাশে কাউকে বহিরাগত সন্দেহ হলেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। সন্তোষজনক উত্তর না পেলে আইনের আওতায় আনা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিফা নুসরাত বলেন, শুক্রবার ২ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। ৪টি ইউনিয়নের নির্বাচনে ৫জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। এরমধ্যে ভাটরায় দু’জন ও তিনটি ইউনিয়নে তিনজন। পুলিশের ৪-৫টি মোবাইল টিম থাকবে। প্রতিটি কেন্দ্রে ভোট শেষ না হওয়া পর্যন্ত ৪জন করে পুলিশ সদস্য ও ১৭জন আনসার সদস্যের পাশাপাশি গ্রাম পুলিশের সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন।

 

সংবাদটি শেয়ার এবং লাইক করুন