ঈদ মার্কেটে ভিড়, বেড়েছে পোশাকের দাম

তাজা খবর করেসপন্ডেন্ট ::  পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বগুড়ার আদমদীঘি ও সান্তাহারের বিভিন্ন বিপণী বিতান গুলোতে বেচা কেনা জমজমাট।

তবে এবার তৈরী পোশাকের দাম বেশি হওয়ায় অনেক ক্রেতা হিমশিম খাচ্ছেন। করোনা সংক্রমণের কারণে বিগত দুই বছর ঈদ মার্কেট না জমলেও এবার মার্কেট গুলোতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে।

ঈদের চমক নতুন পোশাক ‘কাঁচাবাদাম ও ইন্ডিয়ান বারিস’ থ্রি পিস। আর এই নতুন নামের পোশাক কিনতে দোকান গুলোতে ভিড় করছেন তরুণ তরুণীরা ও যুবক যুবতীরা।

কাঁচাবাদাম শব্দটির সাথে কমবেশি সকলেই পরিচিত হলেও ইন্ডিয়ান বারিস নামের শব্দটির সাথে ঈদের নতুন পোশাকের নাম যুক্ত হওয়ায় তরুন তরুনী ও যুবক যুবতীর কাছে বেশি পরিচিতি পাচ্ছে।

ভারতীয় পোশাক কিরণমালা, গাডারা, ঝিলিক ও পরকীয়া পোশাক ব্যাপক প্রচারের পর এবার ঈদে শুধু মাত্র নামের কারনে কাঁচাবাদাম ও ইন্ডিয়ান বারিস নামের পোশাক দুটি এখন বিপনি বিতান গুলোতে ছেয়ে গেছে। এ সুযোগে দোকানীরাও দাম বেশি হাঁকাচ্ছেন।

সাধারণ থ্রি পিস ১হাজার ৩শ থেকে ১ হাজার ৫শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সেখানে কাঁচাবাদাম থ্রি পিস বিক্রি হচ্ছে প্রকার ভেদে ১হাজার ৮০০ টাকা থেকে ২ হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত এবং ইন্ডিয়ান বারিস থ্রি পিস প্রকার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ২০০ টাকা থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকায়।

এ ছাড়া সাধারণ পাঞ্জাবি প্রকার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ৫০০ টাকা থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা, লুঙ্গি ৪০০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা। শিশু কিশোরদের পাঞ্জাবি ও পাজামা সেট ১হাজার টাকা থেকে ১ হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অপরদিকে প্রসাধনী সামগ্রী দোকান গুলোতেও প্রচন্ড ভিড় দেখা গেছে।

থ্রি পিস দোকান মালিক ফেরদৌস আলী ভোলা ও রোহান হোসেন জানান, গেল দুই বছর পর এবার ঈদ মার্কেটে বেচাকেনা সন্তোষজনক।

ক্রেতা ফাতেমা আক্তার ও শারমিন বেগম জানান, ঈদ মার্কেটে এবার তৈরী পোশাকসহ অন্যান্য সামগ্রীর দাম বেশ চড়া।

 

সংবাদটি শেয়ার এবং লাইক করুন