বাজারে অপরিপক্ক লিচু, বেড়েছে চাহিদা

তাজা খবর, আবু মুত্তালিব মতি : বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে উঠেছে অপরিপক্ক রসালো ফল লিচু। গত কয়েকদিন ধরে মৌসুমি সুস্বাদু এ ফল পাওয়া যাচ্ছে। সাধারণত লিচু, আম, আনারস, তরমুজসহ হরেক রকমের রসালো ফল পাওয়া যায় জ্যৈষ্ঠ মাসে। তবে বাজারে লিচুর চাহিদা থাকায় ও বেশি লাভের আশায় পরিপক্ক হওয়ার আগেই বাজারে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা।

বুধবার (১১ মে) সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, অপরিপক্ক এসব লিচু বাজারে বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। আর এসব লিচু পরিবারের সদস্যদের জন্য কিনে নিয়ে যাচ্ছেন অনেকে।

জানা গেছে, রাজশাহী ও দিনাজপুরের পরিপুষ্ট রসালো সুস্বাদু চায়না থ্রি, বম্বে লিচু বাজারে আসতে আরো ১০-১৫ দিন সময় লাগবে। বর্তমানে বাজারে যে লিচু এসেছে সেগুলো অপরিপক্ক ও আকারে ছোট। এতে রস কিছু মিললেও স্বাদ তেমন ভালো নয়। বাজারে লিচুর চাহিদা থাকায় ব্যবসায়ীরা আদমদীঘি, সান্তাহার, মুরইল, কুন্দগ্রাম, চাঁপাপুরসহ বিভিন্ন হাট বাজারে মৌসুমি ফল লিচু বিক্রি করছেন। প্রতি ১০০পিচ লিচু বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা দরে।

বাজারে লিচু কিনতে আসা কোমারপুর গ্রামের এরশাদ আলী বলেন, বছরের প্রথম নতুন মৌসুমি ফল লিচু বাজরে পাওয়া যাচ্ছে তাই ছেলে-মেয়েদের জন্য শখ করে কিনলাম। তবে লিচুগুলো এখনও পরিপক্ক হয়নি। এজন্য লিচু তেমন মিষ্টি হয়নি।

কাশিমালা গ্রামের জয় হোসেন বলেন, শুধুমাত্র মৌসুমি ফলের স্বাদ নিতেই বেশি দামে লিচু কিনলাম।

আদমদীঘি বাজারের লিচু ব্যবসায়ী সুমন ও মুক্তার হোসেন তাজাখবরকে জানান, বাজারে লিচুর চাহিদা থাকায় আমরা হাট-বাজারে বিক্রি করছি। মৌসুমের শুরু হলেও বাজারে লিচুর দাম তুলনামূলক ভাবে বেশি না। লিচু বিক্রি করছি ১০০ পিচ ২০০ থেকে ২৫০ টাকায়।

 

সংবাদটি শেয়ার এবং লাইক করুন