বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবেন না : কূটনীতিকদের উদ্দেশে হানিফ

তাজা খবর ডেস্ক :: ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ।

কূটনীতিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, যারা আমাদের উন্নয়ন সহযোগী তাদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা রয়েছে। কিন্তু আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করার জন্য অনুরোধ করছি তাদের। বিদেশিরা আমাদের উন্নয়ন সহযোগী তারা তাদের কর্মকাণ্ডের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবেন। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিয়ে কোনো মন্তব্য বা হস্তক্ষেপ করবেন না। সীমার মধ্য থেকে যতটুকু বলা যায় ততটুকুই বলবেন।

শুক্রবার বিকালে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ের বাইরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে, নির্ভয়ে জনগণ ভোট দিতে পারবে। বিএনপি যতই চেষ্টা করুক যতই ষড়যন্ত্র করুক, সারা দেশ থেকে তাদের যতই সন্ত্রাসী ও পেটোয়া বাহিনী আসুক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কঠোর অবস্থান আছে।

এর আগে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় নেতাদের এক অনানুষ্ঠানিক বৈঠক হয়। বৈঠকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন ও সাখাওয়াত হোসেন শফিক, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে হানিফ আরও বলেন, আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী। আওয়ামী লীগ এই দেশের সবচেয়ে প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। যার প্রতিষ্ঠাই হয়েছিল গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য।

‘আওয়ামী লীগ ভোট কেন্দ্র দখল করবে’- বিএনপির এমন অভিযোগের বিষয়ে হানিফ বলেন, বিএনপি আসলে চায় নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে। প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায়। ইতিমধ্যেই তাদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে এটা প্রমাণিত হয়েছে।

এ সময় হানিফ গোপীবাগের সংঘর্ষের ঘটনা তুলে ধরে বলেন, এই ঘটনায় প্রমাণিত হয় বিএনপি আসলে তাদের সন্ত্রাসী মনোভাব থেকে বের হয়ে আসতে পারেনি। তারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড অন্যের ঘাড়ে চাপিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা করছে। তবে এটা কোনো কাজে আসবে না।

নির্বচনে ভোটার উপস্থিতির বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, আওয়ামী লীগ সব নির্বাচনকে গুরুত্ব দিয়ে থাকে। জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি নানাভাবে ভয়ভীতি দেখিয়েছিল। তখন তারা বিভিন্ন স্থানে কিছু লোকজনকে হুমকি-ধামকি দিয়ে এক আতঙ্ক তৈরি করেছিল। এই কারণে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি কিছুটা কম ছিল।

তিনি আরও বলেন, শনিবার (আজ) ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনে উৎসবমুখর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সবাই ভোট দেয়ার জন্য উৎসুক হয়ে আছেন।

 

সংবাদটি শেয়ার এবং লাইক করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।